দোয়ারাবাজারে ভুল ম্যাপে জনশুমারি ও গৃহগণনার অভিযোগ

প্রকাশিত: ৬:০৯ অপরাহ্ণ, জুন ১৩, ২০২২

দোয়ারাবাজারে ভুল ম্যাপে জনশুমারি ও গৃহগণনার অভিযোগ

 

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে ভুল ম্যাপ দিয়ে জনশুমারি ও গৃহগণনার কাজ পরিচালনার অভিযোগ উঠেছে পরিসংখ্যান অফিসের বিরুদ্ধে।

 

এব্যাপারে রোববার জেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তার নিকট একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন উপজেলার পান্ডারগাঁও ইউনিয়নের পান্ডারগাঁও গ্রামের বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন। বিরূপ প্রতিক্রিয়ায় সংঘাতের আশঙ্কা করছেন অভিজ্ঞ মহল।

 

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, বিগত ২০১১ সালের জনশুমারিতে উপজেলার পান্ডারগাঁও ইউনিয়নের পান্ডারগাঁও নতুন বাজারে পান্ডারগাঁও গ্রামের নামে জনশুমারির কাজ পরিচালিত হয়। যা ডুমরুয়া মৌজার অন্তর্ভুক্ত। কিন্তু সাম্প্রতিক জনশুমারির কাজে পান্ডারগাঁও ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের ডুমরুয়া মৌজার বর্তমান ম্যাপে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে বিভিন্ন বাড়ির সীমানা ওলটপালট করা হয়েছে এবং ওই ম্যাপে পান্ডারগাঁও নতুন বাজার স্থলে শ্রীপুর নতুন বাজার ও পান্ডারগাঁও স্থলে শ্রীপুর বাজার নামে দুটি নতুন শব্দ সংযুক্ত করা হয়েছে। যা ইচ্ছাকৃত এবং পূর্বপরিকল্পিত।

 

অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়, নতুন দুটি শব্দ সংযুক্ত করায় পান্ডারগাঁও ইউনিয়নবাসীর মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়ায় ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। যেকোনো সময় দাঙ্গা হাঙ্গামাসহ আইনশৃঙ্খলার অবনতির আশঙ্কা রয়েছে। তাই দ্রুত সংশোধনীর মাধ্যমে ডুমরুয়া মৌজার ম্যাপের নতুন শব্দ দুটি বাদ দিয়ে সুষ্ঠভাবে জনশুমারি ও গৃহগণনার কাজ পরিচালনার দাবি জানানো হয়।

 

অভিযোগকারী আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭২ সালে পান্ডারগাঁও নতুন বাজার প্রতিষ্ঠিত হয় এবং গ্রামের নাম পূর্ব থেকেই পান্ডারগাঁও। ওই নামে একাধিক প্রতিষ্ঠানের নামও রয়েছে। কিন্তু একটি মহল উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে নতুন নাম সংযুক্ত করতে তৎপরতা চালাচ্ছে।যার প্রতিফলন ঘটেছে সাম্প্রতিক জনশুমারির কাজে ব্যবহৃত ম্যাপে। আমরা গ্রামবাসী সবাই প্রতিবাদ সভা করেছি, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে অবগত করে জেলা পরিসংখ্যান অফিসে লিখিত অভিযোগও দিয়েছি। এটি সংশোধন না করা হলে আমরা আইনের দারস্থ হবো।’

 

পান্ডারগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহিদ জানান, ‘ পান্ডারগাঁও গ্রামবাসী ও উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা শোয়েব আহমদ বিষয়টি আমাকে জানিয়েছেন। এবিষয়ে জেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তার সাথে আলাপকালে ইউএনও বরাবরে লিখিত আবেদন করার পরামর্শ দেন তিনি।’

 

অভিযোগের বিষয়ে জেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মিন্টু সরকার জানান, ‘আমি একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। গ্রামবাসী ডুমরুয়া মৌজার ম্যাপের বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছেন। তারা জনশুমারি ও গৃহগণনা কাজের তথ্য দিচ্ছেননা, এরআগে নাম সংশোধনের দাবি জানাচ্ছেন। পান্ডারগাঁও ইউপি চেয়ারম্যানের সাথেও আলাপ হয়েছে। নামের বিরোধ নিয়ে হাইকোর্টেও নাকি একটা মামলা চলমান আছে। এবিষয়ে আমাদের কোনো এখতিয়ার নেই। তাদেরকে এবিষয়ে ইউএনও অথবা ডিসি মহোদয় বরাবরে লিখিতভাবে জানাতে বলেছি।’

 

 

 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আর্কাইভ

June 2022
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com