প্রকাশনার ১৫ বছর

রেজি নং: চ/৫৭৫

১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

রাখাইনে যুদ্ধ: সীমান্তে আতঙ্ক কাটবে কবে?

admin
প্রকাশিত
রাখাইনে যুদ্ধ: সীমান্তে আতঙ্ক কাটবে কবে?

 

প্রজন্ম ডেস্ক:

কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তবর্তী বাসিন্দাদের আতঙ্ক কাটছেই না। রোহিঙ্গা-অধ্যুষিত মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে জান্তা বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহী আরাকান আর্মির চলমান তুমুল যুদ্ধে একের পর এক মর্টারশেল ও গোলার বিকট শব্দে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। সর্বশেষ ঈদের দিন বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) দিবাগত রাত থেকে শুরু হয়ে শুক্রবার বিকাল ৩টা পর্যন্ত টেকনাফ-সেন্টমার্টিন দ্বীপ সীমান্তে থেমে থেমে ভারী মর্টারশেলের শব্দ শুনেছেন স্থানীয়রা।

ওপারের যুদ্ধের কারণে টেকনাফের উত্তরপাড়া, লম্বাবিল, উনচিপ্রাং, কাঞ্জরপাড়া, হ্নীলা, মোলভীপাড়া, ওয়াব্রাং, ফুলের ডেইল, চৌধুরীপাড়া, জালিয়াপাড়া এলাকায় ওপার থেকে থেমে থেমে গুলি ও মর্টারশেলের শব্দ পাওয়া গেছে। অন্যদিকে রাখাইনের কুমিরহালি, নাইচদং, কোয়াংচিগং, শিলখালী, নাফপুরাসহ সেন্টমার্টিন দ্বীপের ওপারে হাসসুরাসহ কয়েকটি গ্রামে গৃহযুদ্ধ চলছে। ওপারের গোলার বিকট শব্দে কাঁপছে এপার।

সীমান্তের বাসিন্দারা বলছেন, মিয়ানমারের সরকারি বাহিনীর সঙ্গে আরাকান আর্মির এখনও যুদ্ধ চলছে। ওপারের বেশ কিছু সীমান্তচৌকি দখলে নিয়েছে আরাকান আর্মি। আবার সংঘর্ষে টিকতে না পেরে সরকারি বাহিনীর অনেক সদস্য বাংলাদেশে ঢুকেও পড়েছিলেন। এখনও তেমন পরিস্থিতির আশঙ্কা করছেন তারা।

সীমান্তঘেঁষা শাহপরীর দ্বীপের বাসিন্দা আব্দুর রহমান বলেন, ‘ঈদের রাত (বৃহস্পতিবার) থেকে মিয়ানমারে যুদ্ধের তীব্রতা বেড়েছে। সেখানকার গোলার বিকট শব্দে আমাদের ঘরবাড়ি কাঁপছে। আজ শুক্রবার জুমার নামাজের পরও বিকট শব্দ পাওয়া গেছে। শব্দ এত তীব্র যে নারী-শিশুরা ঘুমাতে পারছে না। এভাবেই আতঙ্কে দিন পার করছি আমরা।’

সীমান্তে কোস্ট গার্ড ও বিজিবি কঠোর অবস্থানে রয়েছেসীমান্তে কোস্ট গার্ড ও বিজিবি কঠোর অবস্থানে রয়েছে

নাফ নদের পাশে বেড়িবাঁধ উত্তরপাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন বলেন, ‘গতকাল রাত থেকে শুরু হওয়া যুদ্ধ এখনও বন্ধ হয়নি। এর আগেও গোলার শব্দ পেয়েছি, তবে এত বিকট ছিল না। মনে হচ্ছে নাফ নদও কেঁপে উঠছে। শুনেছি যুদ্ধ আরও কয়েক দিন চলবে।’

তবে রাখাইনে চলমান যুদ্ধের কারণে নতুন করে বাংলাদেশে যাতে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ না ঘটে, সে জন্য বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

এ বিষয়ে টেকনাফ-২ বিজিবি অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘রাখাইনে গোলাগুলি চলছে। যে কারণে এপারে বিকট শব্দ পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু আমাদের সীমান্তবর্তী লোকজনের ভয়ের কোনও কারণ নেই। সীমান্তে বিজিবি কঠোর অবস্থানে রয়েছে। পাশাপাশি এ সমস্যাকে কেন্দ্র করে নতুন করে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ যাতে না ঘটে, সে জন্য সীমান্তে টহল জোরদার রয়েছে।’

মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের সীমান্ত দৈর্ঘ্য প্রায় ২৮৩ কিলোমিটার। এর বড় একটা অংশই পড়েছে কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফ এবং বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায়। গত বছর থেকে কক্সবাজার ও বান্দরবান সীমান্তে বিদ্রোহী আরাকান আর্মির (এএ) সঙ্গে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও দেশটির সীমান্তরক্ষী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) গোলাগুলির ঘটনা ঘটে আসছে। সীমান্ত এলাকার বাসিন্দারা এর সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে। যদিও গোলাগুলি হলে সবাই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।

নাফ নদের কাছাকাছি জাদিমুড়া সীমান্তের বাসিন্দা মো. আলী বলেন, ‘সবশেষ আমি শুক্রবার বিকাল ৩টায় ওপারে গোলার বিকট শব্দ পেয়েছি। ঘরে থাকা সবাই বজ্রপাত মনে করে ভয়ে কেঁপে উঠেছিল। যেভাবে মিয়ানমার থেকে গুলির শব্দ পাই, মনে হয় এপারে এসে গায়ের ওপর পড়ছে। লালদিয়া এলাকায় মর্টারশেল ও গুলির শব্দ বেশি পাওয়া যায়। তবু আপাতত এখানে রয়েছি। পরিস্থিতি দেখে সিদ্ধান্ত নেবো।’

টেকনাফ সীমান্তের হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রাশেদ মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘ঈদের দিন থেকে টানা মর্টারশেল ও গুলির শব্দ ভেসে আসছে। এতে স্থানীয়দের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। মর্টারশেল ও গুলির শব্দে কাঁপছে সীমান্ত এলাকা। বজ্রপাতের মতো শব্দ হচ্ছে। এ কারণে মানুষ নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে।’

কোনও ধরনের আতঙ্কিত না হতে বলেছে স্থানীয় প্রশাসনকোনও ধরনের আতঙ্কিত না হতে বলেছে স্থানীয় প্রশাসন

অন্যদিকে সেন্টমার্টিনের বাসিন্দারা ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত রাখাইনে মর্টারশেল ও গুলির শব্দ শুনেছেন বলে জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে সেন্টমার্টিন দ্বীপের এক আবাসিক হোটেলের পরিচালক মো. ইসহাক বলেন, ‘প্রবাল দ্বীপের পূর্ব পাশ থেকে (রাখাইনে) ব্যাপক গোলার বিকট শব্দ শোনা যাচ্ছে। এসব শব্দে হোটেলের দরজা-জানালা কাঁপছে। এভাবে থেমে থেমে দুদিন ধরে গোলার বিকট শব্দ পাচ্ছি আমরা। ভয়ে আছি।’

গতকাল থেকে সীমান্তে গোলার বিকট শব্দ বেড়েছে জানিয়ে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আদনান চৌধুরী বলেন, ‘আমরা সীমান্তে নজর রাখছি পরিস্থিতি কোন দিকে যায়। তবে সীমান্তে বসবাসকারী মানুষ যাতে আতঙ্কিত না হয়, সে জন্য আমরা খোঁজ-খবর রাখছি। এ ছাড়া নাফ নদ সীমান্তে আমাদের বিজিবি ও কোস্ট গার্ড সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।’

প্রসঙ্গত, রাখাইনে চলমান যুদ্ধে টিকতে না পেরে গত মাসে ১৮০ জন মিয়ানমার বর্ডার পুলিশ (বিজিপি) সদস্য বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। তারা নাইক্ষ্যংছড়ি বিজিবি ব্যাটালিয়নে রয়েছেন। তাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

এর আগে গত ২ ফেব্রুয়ারি রাত থেকে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সীমান্তের ওপারে আরাকান আর্মির সঙ্গে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির সংঘর্ষ শুরু হয়। এর জের ধরে গত ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসে বিজিপি সদস্যসহ ৩৩০ জন। এর মধ্যে ৩০২ জন বিজিপি সদস্য, ৪ জন বিজিপি পরিবারের সদস্য, ২ জন সেনা সদস্য, ১৮ জন ইমিগ্রেশন সদস্য ও ৪ জন বেসামরিক নাগরিক ছিলেন। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি তাদের আনুষ্ঠানিকভাবে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন।