প্রকাশনার ১৫ বছর

রেজি নং: চ/৫৭৫

২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

যুবলীগের কংগ্রেসে যাননি ওমর ফারুক, মঞ্চে শেখ পরশ

admin
প্রকাশিত নভেম্বর ২৩, ২০১৯, ১০:৪১ পূর্বাহ্ণ
যুবলীগের কংগ্রেসে যাননি ওমর ফারুক, মঞ্চে শেখ পরশ

যুবলীগের কংগ্রেসে দেখা যায়নি ক্যাসিনোকাণ্ডের সুবিধাভোগী তকমা নিয়ে অব্যাহতি পাওয়া সংগঠনটির চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে। তবে মঞ্চে ছিলেন যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনির বড় ছেলে শেখ ফজলে শামস পরশ।

শনিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যুবলীগের ৭ম কংগ্রেস শুরু হয় বেলা ১১ টায়। আওয়ামী লীগ সভপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে বর্নাঢ্য এই আয়োজনের উদ্বোধন করেন।

কংগ্রেসে যুবলীগের সাবেক নেতাদের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা উপস্থিত রয়েছেন। বর্তমান কমিটির বেশিরভাগ নেতাকে সম্মেলনস্থলে দেখা গেলেও ছিলেন না বিদায়ী চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী।

চমক হিসেবে কংগ্রেস মঞ্চে উপস্থিত আছেনব শেখ ফজলুল হক মনির বড় ছেলে শেখ পরশ। তিনি যুবলীগের নতুন চেয়ারম্যান হতে যাচ্ছেন বলে গুঞ্জন রয়েছে। বিদায়ী চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী পরশের ফুপা।

কংগ্রেসে উপস্থিত আছেন যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতার আরেক ছেলে পরশের ভাই শেখ ফজলে নূর তাপস, যিনি আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য। তাদের চাচা শেখ ফজলুল করিম সেলিমও সম্মেলনে আছেন। সেলিম বর্তমানে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য। তিনিও যুবলীগের চেয়ারম্যান পদে ছিলেন।

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট বাবা-মাকে হারানো পরশ ধানমন্ডি সরকারি বালক বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক, ঢাকা কলেজের থেকে উচ্চ মাধ্যমিক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি করেন।

এরপর যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডো ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি করার পর দেশে ফিরে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করে আসছিলেন তিনি।

রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হলেও রাজনীতির মাঠে দেখা যেত না তাকে। এমনকি ছোটভাই তাপসের নির্বাচনী প্রচারেও তাকে খুব-একটা নামতে দেখা যায়নি।

ক্যাসিনোকাণ্ডে আওয়ামী লীগের সবচেয়ে শক্তিশালী সহযোগ সংগঠন যুবলীগের ভাবমূর্তি সঙ্কটে থাকায় ফুপু শেখ হাসিনার নির্দেশে পরশ এবার রাজনীতিতে সক্রিয় হচ্ছেন আওয়ামী লীগ নেতারা জানিয়েছেন।

সম্মেলন প্রস্তুতির জন্য যুবলীগের যে কমিটি হয়েছে, তাতে আকস্মিকভাবে পরশের যুক্ত হওয়া দেখে সবার আলোচনায় আসে তার নামটি।

সম্মেলন প্রস্তুতি দেখতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের শুক্রবার যখন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গিয়েছিলেন, তখন তার সঙ্গে পরশ ছিলেন। সেখানে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ মনির পরিবার থেকে কাউকে যুবলীগের নেতৃত্বে চাওয়াটা সংগঠনটির নেতাকর্মীদের অধিকার। এরপর সম্মেলনের অভ্যর্থনা উপ-কমিটির বৈঠকে যোগ দিতে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের কার্যালয়ে তিনি গেলে কর্মীরা করতালি দিয়ে তাকে ‘পরবর্তী চেয়ারম্যান’ হিসেবে শুভেচ্ছা জানায়।

আজকের কংগ্রেসে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ছাড়াও সভা মঞ্চে ছিলেন যুবলীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক চয়ন ইসলাম, সদস্য সচিব হারুনুর রশীদ, শেখ ফজলে শামস পরশ।

যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান আমির হোসেন আমু, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মির্জা আজম মঞ্চের নিচে সামনের সারিতে বসেছিলেন।

ওমর ফারুক চৌধুরীর অনুপস্থিতি নিয়ে কানাঘুষা আছে। তবে তিনি কেন কংগ্রেসে আসেননি- সে বিষয়ে যুবলীগের কোনো নেতা মুখ খুলতে চাননি।

২০১২ সালে যুবলীগের ষষ্ঠ কংগ্রেসে আনুষ্ঠানিকভাবে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পান ওমর ফারুক। ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০ অক্টোবর তাকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এরপর থেকে রাজনীতি থেকে অনেকটাই নির্বাসনেই চলে যান একসময়কার দোর্দণ্ড প্রতাপশালী এই নেতা।

সংবাদটি শেয়ার করুন।